Menu

সর্বশেষ
সর্বশেষ


নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি: বাংলাদেশের শিশুদের কল্যাণে নিয়োজিত যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের বেসরকারি দাতব্য প্রতিষ্ঠান ‘দ্য অপ্টিমিস্ট’ ৯০ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মূদ্রায় প্রায় ৭৬ লাখ টাকা) তহবিল সংগ্রহ করেছে। গত রবিবার নিউ ইয়র্কের লং আইল্যান্ডের একটি রেস্তোরাঁয় অনুষ্ঠিত ১৮তম বার্ষিক তহবিল সংগ্রহ অনুষ্ঠানে উল্লেখিত পরিমান অর্থ অনুদানের প্রতিশ্রুতি পান কর্মকর্তারা।আদায়কৃত এ অর্থ দিয়ে বাংলাদেশের প্রত্যন্ত এলাকার দরিদ্র পিতামাতার সন্তানদের স্কুলের শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখা হবে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।
অনুষ্ঠানে অর্থের অভাবে বাংলাদেশের স্কুলের শিশু কিশোর শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধে নানা বিষয়ে আলোচনা করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে আরিফ ইসলাম দ্য অপ্টিমিস্ট এর নতুন ওয়েব সাইটের কার্যক্রম সম্পর্কে উপস্থিত সবাইকে অবগত করেন। এর পর ফাতেমা সাহাব রুমা ও মিনহাজ চৌধুরীর প্রানবন্ত উপস্থাপনায় অনুষ্টানের মুল পর্ব শুরু হয়।
অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা জাকির হোসেন ১৫ হাজার ডলারের আর্থিক সহায়তার চেক প্রদান করে বলেন তার জীবনে খুব বেশি চাওয়া পাওয়া নেই। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব এবং কর্ম জীবনে তিনি যা অর্জন করেছেন তার সিংহভাগ তিনি মানব কল্যাণে ব্যয় করতে চেয়েছিলেন সেই মোতাবেক তিনি কাজ করছেন। এর জন্য কোন প্রতিদান আশা করেন না তিনি। বাবা মায়ের আর্থিক সংকটের কারণে কোন ক্ষুদে শিক্ষার্থীর স্কুলে যাবার রাস্তা বন্ধ না হয় সে জন্য ভবিষ্যতে আরো অবদান রাখতে চান তিনি। ১৮ বছর আগে মোহাম্মদ চৌধুরীর (রানা চৌধুরী) উদ্যোগে নিউ ইয়র্ক এবং পার্শবর্তী কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে বসবাসরত কিছু বাংলাদেশি অভিবাসী মিলে এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু করেন। স্কুলে যাবার স্বপ্ন টিকিয়ে রাখতে সহায়তা দেয়ার এই উদ্যোগের নাম রাখা হয় ‘দ্য অপ্টিমিস্ট’ বা আশাবাদী। তহবিল সংগ্রহের এ অনুষ্ঠানে উপস্থাপক রাহাত মুক্তাদির অনুদান প্রদানকারীদের নাম তুলে ধরেন উপস্থিত দর্শক শ্রোতাদের সামনে।তিনি নিজে এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা ১২০ জন শিশুর দায়িত্ব নেয়ার ঘোষনা দেন তিনি। উৎসব গ্রুপের রায়হান জামান শেরপুরে ৫০ শিক্ষার্থীর স্কুল খরচ চালানোর ঘোষনা দেন। এভাবে কেউ ২০, কেউ ১০ জন আবার কেউ তার সামর্থ অনুযায়ী ১ জন শিশুর স্কুলের খরচ বহনের দায়িত্ব নেবার ঘোষনা দেন। অনুষ্ঠানে চিত্রকর তাজুল ইসলামের একটি তৈলচিত্র নিলামে তোলা হয়, যেটি ১২ শত ডলারে বিক্রি হয়। অন্য একটি স্হির চিত্র ৪ শত ডলারের বিক্রি হয় যেটি দান করেন ওবায়দুললাহ মামুন।
অনুষ্ঠানে প্রদত্ত অপ্টিমিস্ট এর শুভেচ্ছা স্মারক মগ প্রতিটি ‌‌১০ ডলার করে বিক্রি করে সেখান থেকেও বেশ কিছু তহবিল সংগ্রহ করা হয়। আয়োজকরা আশা করছেন সংগৃহিত এই তহবিল দিয়ে অপ্টিমিস্টের কার্যক্রম আরো সম্প্রসারণ করা সম্ভব হবে।
অনুষ্ঠানে অপ্টিমিস্ট এর বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডা. ফেরদৌস খন্দকার অপ্টিমিস্ট এর বর্তমান কার্যক্রম সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য প্রদান করেন।অপ্টিমিস্টের কার্যক্রমে বিশেষ অবদানের জন্য ড: আতাউল করিম, প্রফেসর জিয়া উদ্দিন আহমেদ, এবিএইচ ন্যাচারস প্রোডাক্ট, ওয়েস্টার্ণ কেয়ার এবং এসজে বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার প্রদান করা হয়। এ ছাড়াও সেচ্ছা সেবক ক্যাটাগরিতে মিসেস সায়েদা জহুরা, তারেক আলমকেও বিশেষ সন্মাননা পুরস্কার দেয়া হয়। উপস্থিতিদের উদ্দেশ্য মোটিভেশনাল বক্তব্য রাখেন রনি মজুমদার।
অনুষ্ঠানে বিএসপি ও বিএসএ শাখার সদস্যদের নিয়ে ইয়ুথ ফোরাম উপস্থিতি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে। বাংলাদেশি আমেরিকান সোসাইটি অফ প্রফেশনাল (বিএসপি ) সহ প্রায় অর্ধ শতাধিক ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা ভলান্টিয়ার বা স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করেন।
অনুষ্ঠানে এটর্নি মঈন চৌধুরী, এটর্নি ব্রুস ফিসার, কামালর হোসাইন, আজিজ ভুইয়া, ডা. জহির আহমেদ, সুরকার ফুয়াদ মুক্তাদির, জন্মভুমি সম্পাদক রতন তালুকদার, বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টিভির সিওই আবু তাহের, সাপ্তাহিক আজকাল সম্পাদক জাকারিয়া মাসুদ জিকো, প্রবাস পত্রিকা সম্পাকক মোহাম্মদ সাইদসহ প্রায় ৪শতাধিক অতিথি অংশ নেন।


Leave a Comments

avatar
  Subscribe  
Notify of

সর্বশেষ সংবাদ

এই বিভাগের আরও সংবাদ