আরো তিন মামলায় গ্রেপ্তার খালেদা জিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আরো তিনটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে কুমিল্লা, ঢাকার তেজগাঁও ও শাহবাগ থানার তিনটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন কারা-মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইফতেখার উদ্দিন। 


যে তিনটি মামলায় খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে তার মধ্যে একটি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে যাত্রীবাহী বাসে পেট্রলবোমা হামলার মামলা। চৌদ্দগ্রামের মিয়াবাজার সংলগ্ন জগমোহনপুর এলাকায় বাসে পেট্রলবোমা নিক্ষেপের মামলায় গত ২ জানুয়ারি খালেদা জিয়াসহ ৪৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছিল।

ওই মামলায় খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার দেখানোর কথা জানতে পেরেছেন তাঁর আইনজীবীরা। এজন্য তাঁরা জামিনের আবেদন করারও প্রস্তুতি নিচ্ছেন। অন্য আর কোনো মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে তা তাঁরা জানেন না।

এদিকে কুমিল্লার মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর ব্যাপারে ঢাকার গুলশান থানার পুলিশ কিছু জানে না বলে দাবি করেছে। ঢাকার আদালতের অপরাধ, তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগের উপকমিশনার আনিসুর রহমান জানিয়েছেন, খালেদা জিয়াকে আজ ঢাকা কোর্টে কোনো মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া জানিয়েছেন, কুমিল্লার নাশকতার মামলায় খালেদা জিয়াকে রেকর্ড শ্যেন অ্যারেস্ট দেখানো হয়েছে। আরো মামলার কথা তিনি শুনেছেন। তবে নিশ্চিত করতে পারেননি।

এর আগে কুমিল্লার কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক সুব্রত ব্যানার্জি জানান, ২ জানুয়ারি আদালতের আদেশের পরপর তাঁরা ওই মামলার গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ঢাকার গুলশান থানা পুলিশের কাছে পাঠান। একই তথ্য জানিয়েছেন কুমিল্লা জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার (ডিআই-১) পরিদর্শক মো. মাহবুব মোর্শেদ।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুরে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ডাদেশ এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। সাজা ঘোষণার পর খালেদা জিয়াকে নাজিমুদ্দিন রোডের পুরানো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়।

বাংলা প্রেস/১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮/এফএস