আমেরিকান ‘লাইলী-মজনু’র অমর প্রেম!



সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক : পরনাপন্ন ক্যান্সার রোগীকে মৃত্যুর ১৮ ঘন্টা আগে বিয়ে করে লাইলী মজনুর অমর প্রেম কাহিনীকেও হার মানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাট অঙ্গরাজ্যের একটি স্কুলের শিক্ষিকা হেদার ও ডেভিড মোশার। গত বছরের ২২ ডিসেম্বর হার্টফোর্ডের সেন্ট ফ্রান্সিস হাসপাতালের

বিছানায় শুয়েই আংটি বদলের পর বিয়ে হয় হেদার-ডেভিডের। মুখে অক্সিজেন মাস্ক পরেই হেদার-ডেভিডের হাত ধরে কেক কাটেন।বিয়ের ১৮ ঘন্টা পরেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন হেদার।
২০১৫ সালের মে মাসে হেদার-ডেভিডের প্রথম পরিচয় ঘটে। এরপর দু’জনের মধ্যে  ভালবাসার গভীর সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক বছর পর ২০১৬ সালের ২৩ ডিসেম্বর হেদারের স্তন ক্যান্সার ধরা পড়ে। এ খবর তাদের দু’জনের সম্পর্কে কোন ফাটল ধরাতে পারেনি।বরং উল্টো ডেভিভ বলেন হেদারের  ক্যান্সারের সঙ্গেই লড়বেন তিনি। তবে দুর্ভাগ্যবশত হেদারের স্তন ক্যান্সার মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পড়ে। তাকে কিছুদিন লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়।
চিকিৎসকরা জানান, হেদারের বাঁচার কোন সম্ভাবনা নেই। তাই কোন কিছু ঘটে যাওয়ার আগেই বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হতে চেয়েছিলেন এই যুগল। দু’জনে সিদ্ধান্ত নেন ২০১৭ সালের ৩০ ডিসেম্বর বিয়ে করবেন। কিন্তু হেদারের হাতে খুবই কম, মাত্র  কয়েক ঘণ্টা বাকি। এরপর গত ২২ ডিসেম্বর হার্টফোর্ডের সেন্ট ফ্রান্সিস হাসপাতালের বিছানায় হেদারকে বিয়ের আংটি পরিয়ে দেন ডেভিড। অক্সিজেন মাস্ক পরে হেদার ডেভিডের হাত ধরে কেকও কাটেন। এ সময় উপস্থিত বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়- স্বজনসহ হাসপাতালের চিকিৎসক ও কর্মচারীরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।
বিয়ের পর মাত্র ১৮ ঘণ্টা স্থায়ী হয়েছিল হেদার-ডেভিডের হাসপাতালের দাম্পত্য। এরপরই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন হেদার। এই অনন্য প্রেমিক যুগলের বিয়ের ছবিগুলো হেদারের বান্ধবী ক্রিস্টিনা কারাস ইনস্ট্রাগ্রামে পোস্ট করে লেখেন  এদের এক হওয়া যেন নির্ধারিত ছিল। এরপরই এ খবর ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।